প্রচ্ছদ > প্রিয় খানসামা > খানসামার ভাবকিতে দুপক্ষের দ্বন্দের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধের অভিযোগ

খানসামার ভাবকিতে দুপক্ষের দ্বন্দের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধের অভিযোগ

খানসামা বার্তা : দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের চন্ডীপাড়ায় দুপক্ষের দ্বন্দ্বের জেরে নাজিম উদ্দিনের চলাচলের রাস্তা বন্ধের অভিযোগ উঠেছে।

এবিষয়ে নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে হযরত আলী (৫৫), বুধু (৩০), বিশু(২৬) এর নামে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও অফিসার ইনচার্জ বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছে।

নাজিম উদ্দিন জানান, বিবাদীরা জোরপূর্বক আমার বাড়ি ভেঙ্গে চলাচলের রাস্তা করতে চাইলে আমি রাজি না হওয়ায় চলাচলের রাস্তায় বেড়া দেয় এতে চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে এ বিষয়ে কায়সার আলী নামে এক প্রতিবেশীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, – আমি কৃষিকাজ করি ও ব্যবসা করি । এ রাস্তা দিয়ে আমার কোন উপকারে লাগে না। এমনকি এ রাস্তা দিয়ে লাশ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া যায় না। এর জন্য জামাতের সকলে মিলে রাস্তাটি বড় করার জন্য আলাপ-আলোচনা করা হচ্ছে কিন্তু এই নাজিমুদ্দিন ও তার ছেলের জেদের কারনে তা প্রসারিত করা হচ্ছে না।

হয়রত আলী (৫০) বলেন, আমরা তো আর এমনিতে তার জমি চাচ্ছি না। সে প্রাচীর ভেঙ্গে দিয়ে রাস্তা করার জন্য জমি ছেড়ে দিবে তার বদলে তাকে জমি ও প্রাচীর মেরামত করে দেওয়া হবে।

নজরুল (৭১) বলেন, আমাদের এত গুলো মানুষের কথা সে না শুনে আর আমরা কেন একটি পরিবারের জন্য আমাদের জায়গা ছেড়ে দিয়ে রাস্তা দিব। রাস্তা করার জন্য আমার বাড়ি ভেঙ্গে সরিয়ে নিব।

খালেক বলেন, এটা তো লাভ ছাড়া ক্ষতির কিছু দেখতেছি না। রাস্তা করার জন্য ৪ ফিট জায়গা দিবে তার বদৌলতে তাদের ঐ জায়গায় ১৩ ফিট জায়গা দেওয়া হবে। আর নতুন করে বাড়িও করে দেওয়া হবে।

এভাবেই ভাবকি ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য সাত্তার, চন্ডীপাড়ার আইনুল হক বাবু, ভ্যানচালক শাহজাহান, ব্যবসায়ী ফরিদুল হক সহ প্রায় ৮০-৯০ জন লোকের সাথে। তাদের সবার দাবি রাস্তা করার জন্য জমি ছেড়ে দিলেই রাস্তা খুলে দেওয়া হবে নতুবা তা খুলে দেওয়া হবে না।

শেষে নাজিমুদ্দিন ও তার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা হলে তারা জানান, আমাদের প্রসারিত রাস্তার দরকার নেই। আমরা কারো কাছে জমি ও বাড়ি নিতে চাই না। আমরা যেভাবে আছি সেভাবেই থাকতেই চাই। শুধু আমরা যে রাস্তা ব্যবহার করি তা খুলে দিলে হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম জানান, রাস্তাটি রেকর্ডকৃত নয়। এটা তাদের নিজের তৈরি করা রাস্তা। বিষয়টি তাদের মধ্যে বসে মিমাংশা করার জন্য বলেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.