প্রচ্ছদ > সারাদেশ > বৃহস্পতিবার ঐক্যফ্রন্টকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণ

বৃহস্পতিবার ঐক্যফ্রন্টকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণ

ডেস্ক বার্তা : গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে সংলাপে বসতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে এই বৈঠকের আহ্বান জানিয়ে আমন্ত্রণপত্র দেয়া হয়।

সংলাপের আহ্বান জানিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চিঠি পাওয়ার দুই দিন পর মঙ্গলবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামালের বেইলি রোডের বাসায় প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দেন আ.লীগের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ।

প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণপত্রে লেখা রয়েছে, ‘সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন। আপনার ২৮ অক্টোবর ২০১৮ তারিখের পত্রের জন্য ধন্যবাদ। অনেক সংগ্রাম ও ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে সংবিধানসম্মত সকল বিষয়ে আলোচনার জন্য আমার দ্বার সর্বদা উন্মুক্ত। তাই, আলোচনার জন্য আপনি যে সময় চেয়েছেন, সে পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ১ নভেম্বর ২০১৮ তারিখ সন্ধ্যা সাতটায় আপনাদের আমি গণভবনে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি।’

দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করা দল বিএনপি ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর থেকেই সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়ে আসছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ তাদের কথায় কর্ণপাত করেনি। এজন্য ক্ষমতাসীন দলটির নেতারা দশম সংসদ নির্বাচনের আগে আলোচনার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করে শেখ হাসিনার প্রত্যাখ্যাত হওয়ার বিষয়টি বলে আসছিলেন।

আমন্ত্রণপত্র হস্তান্তরের পর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ বলেন, ‘২৮ অক্টোবর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত একটি প্রধানমন্ত্রী বরাবর পাঠানো হয়। তা আমি অফিসিয়ালি গ্রহণ করি। সেই চিঠির জন্য প্রধানমন্ত্রী ধন্যবাদ দিয়েছেন এবং তারই আলোকে একটি অফিসিয়াল বক্তব্য আমার মাধ্যমে ড. কামাল হোসেনের কাছে পাঠিয়েছেন।’

গোলাপ বলেন, ‘অনেক ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে সংবিধান সম্মত সকল বিষয় আলোচনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দ্বার সর্বদা উন্মুক্ত। তাই ওনারা (ঐক্যফ্রন্ট) আলোচনার জন্য যে সময় চেয়েছেন, তারাই পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ১ নভেম্বর সন্ধ্যা সাতটায় প্রধানমন্ত্রী গণভবনে তাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। সেই আমন্ত্রণপত্রটি আমি সরাসরি ড. কামাল হোসেন সাহেবের হাতে তুলে দিয়েছি।’

আমন্ত্রণপত্র হস্তান্তরের সময় উপস্থিত থাকা গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু বলেন, ‘আমরা ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি দিয়েছিলাম। তারপর ওনারা জানিয়ে দিয়েছিলেন খুব তাড়াতাড়ি বসবেন। ওনারা আমাদের ১ নভেম্বর আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।’

সংলাপে অংশ নিতে কতজন যাবেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা কয়জন যাচ্ছি, কে কে যাচ্ছি সেই তালিকাটা ওনারা জানতে চেয়েছেন। আমরা আজকেই সেই তালিকা দেবো। আমাদের জোটের দলসমূহের নেতৃবৃন্দ যারা আছেন তাদের মধ্যে ১৫ জনের কমবেশি হতে পারে।’

এক প্রশ্নের জবাবে মন্টু বলেন, ‘শুধু সাত দফা না, সাত দফাসহ অন্যান্য বিষয় এবং বর্তমান যেসব ইস্যু আছে সবগুলো নিয়ে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রেক্ষাপট তৈরির জন্য আমরা ওনাকে (শেখ হাসিনা) অনুরোধ করবো। এজন্য উনি যদি আমাদের কাছে কোনো সাহায্য সহযোগিতা চান, তা অবশ্যই আমরা করব।’

গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ড. কামাল হোসেন সাহেব যেহেতু সংবিধান প্রণেতাদের অন্যতম, তাই তিনি বিস্তারিত ব্যাখ্যাটা দিতে পারবেন। বিষয়টা আমরা ওনার উপরে ছেড়ে দিচ্ছি। তিনি আমাদের নেতৃত্ব দেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.